Breaking

Monday, February 4, 2019

স্কুল শিক্ষকের সৌরবিদ্যুতে চালিত বাইক এবার অভিনব আবিষ্কার


    জীবাশ্মহীন শক্তি
  Ø ছ’টি সানপাওয়ার প্যাকের মাধ্যমে শক্তি উৎপাদন
  Ø ৬০ কিলোমিটার ঘন্টা পিছু ছুটবে বাইক
  Ø দিনে পাঁচ থেকে ছয় ঘন্টা চার্জই যথেষ্ট
  Ø দিনে একবার চার্জেই ১০০ কিমি যাবে বাইক
  Ø মাত্র ৩০ হাজার টাকা খরচে তৈরি হয়েছে বাইকটি
  Ø জ্বালানি খরচের সঙ্গে দূষণও থাকবে না যানটিতে


পেট্রলের বদলে সৌরশক্তিতে বাইক চালনোর এক অভিনব কৃতিত্বের নজির গড়লেন পশ্চিমবঙ্গের নদিয়া জেলার একটি সরকারি প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক শুভময় বিশ্বাস। বছর তিরিশের এই স্কুল শিক্ষকের বাইকটি পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় প্রদর্শিত হয়েছে। আর সেখান থেকেও সম্মানিত হয়েছেন শুভময়বাবু।

    হঠাৎ করে কেন এই ধরনের চিন্তভাবনা সেই নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে তিনি জানিয়েছেন, পেট্রলের লাগাম ছাড়া মূল্য বৃদ্ধিতে যখন গাড়ি চালানেই দুষ্কর হয়ে উঠেছে, তখন নিখরচায় বাইক চালানোর জন্য তার এই অভিনব উদ্যোগ। পাড়ার একটি পুরোনো লোহার দোকান থেকে মাত্র ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে একটি অচল বাইক কিনেছিলেন তিনি।

    তবে প্রথম থেকেই বৈজ্ঞানিক চিন্তাভাবনার উদ্ভব ঘটেনি তার। পুরোনো বাইককে নতুন রূপে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করেছিলেন তিনি। আর সেজন্যই স্থানীয় গ্যারেজেও যোগাযোগ করেছিলেন। যদিও ফল মেলেনি। হতাশ হয়েই ফিরতে হয়েছিল তাকে। গ্যারেজের মালিকরা জানিয়ে দিয়েছিল, এই অচল বাইককে সচল করার মতো পদ্ধতি তাদের জানা নেই।

    কিন্তু তাতে হতাশ হননি তিনি। প্রায় গোটা চৌদ্দো খানা সোলার প্লেট কিনে নিজের কারিগরি দক্ষতা দেখাতে শুরু করেন তিনি। শেষমেশ চারটি সোলার প্লেটেই দিব্যি চলতে শুরু করল শুভময়ের সাধের বাইক। এখন প্রতিদিনই ওই বাইকে করেই স্কুলে যান তিনি। তার দাবি ঘন্টায় ৬০ কিলোমিটার বেগে দৌড়বে এই বাইক অথচ কোনও জ্বালানি খরচ নেই।

    নিজের বাড়ি থেকে কর্মস্থলের দূরত্ব প্রায় ২২ কলোমিটার। দিনে যাতায়াতে প্রায় একশো টাকার কাছাকাছি খরচ হতো তার। তাছাড়া সময় মতো স্কুলেও পৌছতে পারতেন না তিনি। তাই সাধ ছিল নিজেই দু’চাকা চালিয়ে স্কুলে যাবেন। প্রথম দিকটা ভরসা ছিল সাইকেল।

    তারপর সাইকেলকে ছুটি দিয়ে বাইক কিনলেন। অকেজো বাইককে সচল করতে টানা প্রায় একমাস রাতে দু-তিন ঘন্টা পরিশ্রম করেছেন। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে ইলেকট্রো ফিজিক্স, ইলেকট্রনিক কমিউনিকেশনের স্নাতক স্তরের প্রযুক্তি বিভাগের একাধিক বইয়েরও সাহায্য নিতে হয়েছিল তাকে।

    সব মিলিয়ে ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে বলে দাবি শুভময়ের। মাত্র চারটি ‘সান পাওয়ার প্যাক’ দিয়েই দিব্যি বাইক ছুটিয়ে চলেছেন তিনি। পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় ‘সোলার বাইক’ দেখার জন্য ভিড় উপচে পড়েছিল। প্রদর্শনীতে শুভময় জানিয়েছেন, দিনে পাঁচ থেকে ছয় ঘন্টা চার্জ দিলেই প্রায় ১০০ কিলোমিটার ছোটানো যাবে বাইকে। 

    বিজ্ঞান প্রযুক্তি মেলার সহকারী সম্পাদক অভিমুন্য বন্দ্যোপাধ্যায় প্রদর্শনীর সেরার সম্মান শুভময়ের হাতে তুলে দিতে গিয়ে জানিয়েছেন, ‘এই বাইক শুধু পকেট বাঁচাবে নয়, একই সঙ্গে পরিবেশও বাঁচবে।’

No comments:

Post a Comment