Breaking

Monday, January 21, 2019

ট্রাম্পের দেওয়া শাটডাউন দাওয়াই কারিজ করলেন ডেমোক্র্যাটরা



ট্রাম্পের ‘শাটডাউন’ নীতি সোমবার একমাস পূর্ণ করল। দীর্ঘ সময়ের পর এই প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সাংবাদিকদের মাধ্যমে শাটডাউনের রফা সূত্র বের করতে একটি প্রস্তাব দিলেন। যে প্রস্তাবে হোয়াইট হাউস থেকে এক টিভি বার্তায় ট্রাম্প ৫৭০ কোটি ডলার মঞ্জুর করার জন্য ডেমোক্র্যাটদের বার্তা দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, অর্থ মঞ্জুর করলে তার সরকার আমেরিকায় থাকা সাত লক্ষ অবৈধ অভিবাসীকে সাময়িকভাবে থাকার অনুমতি দেবে। 

    কিন্তু ট্রাম্পের এই প্রস্তাব পেশের পাঁচ মিনিট যেতে না যেতেই ডেমোক্র্যাটরা প্রস্তাবটিকে সরকারি ভাবে খারিজ করে দেন। ট্রাম্পের যুক্তি ছিল, আমেরিকা এবং মেক্সিকোর মাঝে একটি লোহার পাঁচিল তৈরি করতে হবে। এই পাঁচিল তৈরি হলেই অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকানো যাবে বলে মত বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্টের। তিনি বলেছেন, নথি ছাড়ািই যে সব যুবক এবং শিশু আমেরিকায় রয়েছে তাদের পর্যাপ্ত সুরক্ষা এবং থাকার অনুমতি দেবে মার্কিন প্রশাসন। ট্রাম্পের যুক্তি, পৃথিবীর প্রায় ৩০টির’ও বেশি দেশ থেকে লক্ষ লক্ষ যুবক-যুবতি আমেরিকায় উন্নত জীবন এবং ভাল রোজগারের আশায় চলে আসছেন। ট্রাম্প এই মানুষগুলিকে ‘ড্রিমার্স’ বলে সম্বোধন করেছেন। তিনি বলেছেন, চুরিয়ে গা ঢাকা দিয়ে আমেরিকায় ঢুকে পড়ছে। এরা এখন আমেরিকা ছেড়ে যেতে নারাজ। এই সব মানুষগুলি যদি আমেরিকায় থাকেন তাহলে আমেরিকার ভবিষ্যৎ এবং বর্তমান প্রজন্ম চাকরি পাবে না। আর এই ড্রিমার্সরাই আমেরিকায় থাকতে থাকতে আমেরিকার নাগরিকত্ব, সামাজিক সুরক্ষা চেয়ে বসবে।’ 

    উল্লেখ্য, গত ২২ ডিসেম্বর বড় দিনের ছুটি পড়ার মুহূর্তেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট শাটডাউন নীতি ঘোষণা করেছিলেন। তার এই নীতিতে তিনি সমস্ত সরকারি দফতরগুলিকে বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিলেন। শুধু নিজের দেশেই নয় অন্য দেশেও মার্কিন দূতাবাস রয়েছে সেখানকার কর্মীদের বিনা বেতনে চাকরি করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। ৩০ দিনের এই পরিস্থিতি ক্রমশ জটিল হচ্ছে বুঝেই এবার ডেমোক্র্যাটদের উদ্দেম্যে ‘মানবিক সাহায্য এবং ত্রাণ’এ ৮০ কোটি ডলার মঞ্জুরের প্রস্তাবও টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে রেখেছিলেন ট্রাম্প। যদিও সেই প্রস্তাবও মানতে রাজি হয়নি ডেমোক্র্যাট সমর্থকরা।

    ডেমোক্র্যাট নেত্রী ন্যানসি পেলোসি সোমবার স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন, ‘ট্রাম্পের কোনও শর্ত কোনও কাজেই আসবে না। সমস্ত প্রস্তাবই অবাস্তব। তার চেয়ে ট্রাম্পের এখনি নিঃশর্তে সরকারের কাজকর্ম চালু করতে দেওয়া উচিত। সরকারি কাজকর্ম শুরু হলে তবেই অভিবাসীদের বিষয় নিয়ে আলোচনা করা যাবে।’ 

    ট্রাম্প শিশু এবং কমবয়সী অবৈধ অভিবাসীদের ছাড় দিতে চাইছেন বলে রিপাবলিকান দলের দরফে বলা হয়েছে। কিন্তু ট্রাম্পের নেতৃত্বাধীনে রিপাবলিকানদের সঙ্গে ডেমোক্র্যাটদের যে বিবাদ তিক্ততার পর্যায়ে পৌছেছে তা মীমাংসার কোনও সূত্র এখনও বেরোয়নি। সব মিলিয়ে আট লক্ষ সরকারি কর্মচারি এখন কর্মহীন। তাদের বেতন এবং ভাতা বন্ধ করে দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন।

No comments:

Post a Comment