Breaking

Friday, January 25, 2019

এই প্রথম সেনার ‘বাহুবলী’ রূপ দেখবে বিশ্ব


শনিবারের প্রজাতন্ত্র দিবসে এক অসাধারণ সমাবেশের সাক্ষী থাকবে গোটা দেশ। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গনতন্ত্রের সামরিক শক্তি দেখবে গোটা দুনিয়া। এ বারই প্রথম দিল্লির রাজপথ কাঁপিয়ে কুচকাওয়াজে শামিল হবে অত্যাধুনিক এ-৭৭৭ হাউৎর্জারএবং কে-৯ বজ্র সেলফ প্রপেলড আর্টিলারি বন্দুক। এর পাশাপাশি কুচকাওয়াজে থাকছে বিএমবি-২ ল্যান্ডমাইন ক্লিনার সহ একাধিক অত্যাধুনিক যুদ্ধাস্ত্র। 

    এবারের প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে সেনাবাহিনীর আধুনিকীকরণ ও পেশিশক্তির প্রদর্শনের উপরে জোর দিয়েছে কেন্দ্র। এর আগে রাজপথে এই শ্রেণীর যুদ্ধাস্ত্র প্রকাশ্যে প্রদর্শন করা হয়নি। 

    গত ৩৭ বছর তাড়া করে বেড়ানো বফর্সের ভূত নামিয়ে সদ্য এম-৭৭৭ আল্ট্রা লাইট হাউৎর্জার কামান হাতে পেয়েছে ভারতীয় সেনা। সম্প্রতি সে কামানের সামনে দাঁড়িয়ে ছবিও চুইট করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সব মিলিয়ে কয়েক বছরের মধ্যে আমেরিকায় তৈরি ১৪৫ টি এম-৭৭৭ যোগ হবে সেনার ভান্ডারে। এই যুদ্ধাস্ত্রের বৈশিষ্ট্য এর হালকা ওজন। 

    মাত্র ৪ টন ওজনের এই কামান। ফলে এই কামানকে ফুট উচ্চতার লাদাখ ও অরুনাচলে ৪,০৫৭ কিলোমিটার বিস্তৃতভারত-চিন সীমান্তে নিয়ে যাওয়া যাবে। লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি)-এ গিয়ে অতন্দ্র প্রহরায় নিযুক্ত থাকবে এম-৭৭৭। প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুকেও নিখুঁত নিশানায় আঘাত করতে সক্ষম এই হাউৎর্জার। এর গজন হালকা বলে একে সহজে এমনকী হেলিকপ্টারে করে যুদ্ধাঙ্গণে মোতায়েন করা যাবে।

    অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়ায় তৈরি কে-৯ বজ্রকে বয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য চালকের প্রয়োজন হয় না। এই কামান স্বচালিত। পরিস্থিতি বুঝে গতি ও পথ পাল্টাতে পরে এই কামান। বফর্স কামান দাগতে ৮ জন সেনার প্রয়োজন হয়। আর এই বজ্র দাগতে প্রয়োজন পাঁচ জনের দল। 

    এই অস্ত্রের সর্বোচ্চ পাল্লা ২৮ থেকে ৩৮ কিলোমিটার। ‘বার্স্ট মোড’-এ ৩০ সেকেন্ডে তিন রাউন্ড শেল লক্ষ্যবস্তুতে ছুড়তে সক্ষম এই অস্ত্র। আর এই অস্ত্রের ‘ইনসেন্স’ মোড চালু করলে ৬০ মিনিটে ৬০টি গোলা ছুড়তে পারে এই কে-৯ বজ্র কামান। এই দুই আধুনিক কামানের পাশাপাশি এবারের কুচকাওয়াজে শামিল হচ্ছে ভারতীয় সেনার ‘টি-৯০’ ট্যাঙ্ক। সেই সঙ্গে আকাশ মিাইল সিস্টেম। 

    সব মিলিয়ে এ বার ভারতীয়সেনার ‘বাহুবলী’ রূপটি প্রথম দেখবে গোটা বিশ্ব। সর্বোপরি বুধবার থেকেই রাজধানী ও তার সংলগ্ন বিস্তীর্ণ এলাকা নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে দেওয়া হয়েছে। এদিন থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে নাকা চেকিং।

No comments:

Post a Comment