Breaking

Thursday, November 29, 2018

সন্তান কোথায় যাচ্ছে, ফোন নিয়ে কী করছে, জানিয়ে দেবে গুগল অ্যাপ


আপনার সন্তান কি অজান্তে অনেকক্ষণ বাড়ির বাইরে তার বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছে? অথবা স্কুলের নাম করে বাইরে গিয়ে দীর্ঘক্ষণ স্মার্টফোনে ব্যস্ত থাকছে? এমনকী, অনভিপ্রেত সঙ্গীদের সঙ্গে সারাদিন চ্যাটিং করছে?



    অভিভাবকদের এই সব দুশ্চিন্তা দূর করতে মুশকিল আসানের ভূমিকায় অবতীর্ণ হচ্ছে গুগল। তারা একটি অ্যাপ নিয়ে আসছে। যার নাম ‘ফ্যামিলি লিঙ্ক অ্যাপ’। অভিভাবকদের স্মার্টফোনের সঙ্গে সন্তানদর ফোনে সংযুক্ত থাকবে এই অ্যাপ। এর মাধ্যমেই বাড়ির বাইরে সন্তানদের গতিবিধি সর্বক্ষণ হাতের তালুর মধ্যে থাকবে অভিভাবকদের। শুধু তাই নয়, অভিভাবকদের যদি মনে হয়, তার সন্তানটি স্মার্টফোনটির অপব্যবহার করছে, বা সে ফোন নিয়ে এমন কিছু করছে যা তার ক্ষতি ডেকে আনতে পারে, সে ক্ষেত্রে বাড়িতে বসেই অবিভাবক সন্তানের ফোনটি ‘লক’ দিতে পারবেন।



    এই অ্যাপ আগেই মার্কিন মুলুকে চালু করেছিল গুগল। এ বার ভারতের গুগল ব্যবহারকারীদের জন্যেও এই অ্যাপ পরিষেবা তারা চালু করতে চায়। কী ভাবে কাজ করবে এই অ্যাপ? গুগল সূত্রে খবর, এই অ্যাপের মাধ্যমে একটি অ্যাকাউন্টের মধ্যে দিয়ে নিজের স্মার্টফোনের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে সন্তানদের ফোন। এর ফলেই ওই অ্যাকাউন্ট মারফত সন্তানদের বর্তমান গতিবিধির সব খবর চলে আসবে অভিভাবকদের কাছে। আপনার সাধের সন্তান বাড়ির বাইরে ফোনটি হাতে নিয়ে কোনও বিপদে পড়লেও তৎক্ষনাৎ তা আপনি জেনে যেতে পারবেন। প্রসঙ্গত, অনেকটা এ ভাবেই কুখ্যাত অপরাধী বা জঙ্গিদের ফোনে নজরদারি চালান গোয়েন্দারা। সে ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কোনও অ্যাপের দ্বারা সংযোগ না ঘটলেও সরাসরি সার্ভারে নজরদারি চালিয়ে উদ্দিষ্ট অপরাধীর স্মার্টফোনের সম্পূর্ণ গতিবিধি গোয়েন্দারা জানতে পারেন।


    ’ফ্যামিলি লিঙ্ক অ্যাপ’ অবশ্য কোনও গোপন নজরদারি নয়, সবটাই চলবে পারস্পরিক বোঝাপড়ায়। গুগল বলেছে, ‘এই অ্যাপ আসলে সন্তান ও অভিভাবকদের অ্যান্ড্রয়েড ইকোসিস্টেমে রাখার চেষ্টা।’

    সন্তানের মাসিক এবং সাপ্তাহিক র্কাযকলাপের সবিস্তার বিবরণ অভিভাবকদের দিয়ে দেবে এই অ্যাপ। আপনি ঘরে বসেই দিব্যি জানতে পারবেন, আপনার বাচ্চা কতক্ষণ স্মার্টফোনের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছে। এমনকি, যতক্ষণ সময় সন্তানটি ফোনের সঙ্গে কাটাচ্ছে ততক্ষন সে ফোন নিয়ে কী করছে জানতে পারবেন সেটিও। আপনি যদি চান দুর থেকেই লক করে দিতে পারবেন সন্তানের ফোন। অ্যাপ নির্মাতারা বলেছেন, স্মার্টফোনের সচেতনতা বাড়ছে এবং ফোনের অপব্যবহার রুখতে এই অ্যাপ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। শুরুতে আমেরিকায় তেরো বছরের কম বয়সিদের কথা মাথায় রেখেই এই অ্যাপ নিয়ে এসেছিল গুগল। পরে এই অ্যাপ ব্যবহারকারীরা অনুরোধ করেন, তেরো থেকে বয়সের ঊর্ধ্বসীমা অন্তত উনিশ বছর পযর্ন্ত বাড়ানো হোক। গুগল সূত্রে জানানো হয়েছে, চলতি সপ্তাহ থেকে সেটাই তারা করতে চলেছেন। ৈএ বার থেকে উনিশ বছরের ছেলেদেরও অ্যাকাউন্ট নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। অভিভাবকেরা। এতে অ্যাপে একটি ফিচারের বদল ঘটানো হচ্ছে। যার ফলে ১৯ বছর বয়স পযর্ন্ত ছেলেমেয়েরা চাইলেও ওই অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড বদলাতে পারবেন না। অন্যাদকে সন্তানের বয়স যদি হয় অনুর্ধ্ব উনিশ, অভিভাবক গুগল সহায়ককে ‘কো-ডিভাইস’ লক করে দিতে বললেই তৎক্ষণাৎ তা বন্ধ করে দেবে গুগল। সেই সময় আপনার সন্তানটি ফোনে যা-ই করুক না কেন, তার স্মার্টফোনটি সঙ্গে সঙ্গে ‘লক’ হয়ে অচল হয়ে যাবে। গুগল সূত্রে জানানো হয়েছে, বিশ্বের অধিকাংশ দেশে খুব দ্রুত এই অ্যাপ পরিষেবা পৌঁছে দেওয়া হবে। শিশুদের স্মার্টফোনের আসক্তি থেকে দূরে রাখতে এই অ্যাপ অত্যন্ত র্কাযকরী ভূমিকা গ্রহণ করবে। শুধু স্মার্টফোনে নয়, ক্রোমবুকেও কাজ করবে এই ফিচার।

No comments:

Post a Comment