Breaking

Thursday, November 22, 2018

রাজস্থানের বাঁ-হাতি পেসার এখন ভারতের অন্যতম সেরা অস্ত্র



ভারতীয় দলে নিজের জায়গাটা ইতিমধ্যেই নিশ্চিত করে ফেলেছেন তিনি। খেলে ফেলেছেন ছয়-ছয়টি একদিনের ম্যাচও। এশিয়া কাপেও বল হাতে দুরন্ত পারফরম্যান্স দোখিয়েছেন। যা খলিল আহমেদকে সহজে অস্ট্রেরিয়ার বিমানে উঠতে সাহায্য করেছে। রাজস্থানের বাঁ-হাতি পেসার এখন ভারতের অন্যতম সেরা অস্র হয়ে উঠেছে। তবে প্রথমবার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ক্যাঙারুদের মুখোমুখি হওয়ার আগে একেবারেই চিন্তিত নন তিনি। বরং খলিল আত্মবিশ্বাসী এই সিরিজে নিজের সেরা উজার করে দেবে বলে। একই সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টি-২০ খেতাব দলের হাতে তুলে দেওয়া নিয়ে আশাবাদী জাতীয় দলের পেসার।



    গাব্বায় ম্যাচের একদিন আগে খলিল বললেন, ‘আমার কেরিয়ারের চতুর্থ খেতাব তোলার জন্য আমি তৈরি। দলের হয়ে পারফরম্যান্স কে না করতে চােইবে। আমারও খুব ভালো লাগে ট্রফি হাতে তুলতে। কিন্তু ভালো লাগাটা এভাবে কথায় বলে বোঝানো সম্ভব নয়। এটা আলাদা অনুভুতিই।’ তবে রাজস্থানের টঙ্ক পেসারের এটা নতুন কোনও ঘটনা নয়। এর আগেও তিনি জাতীয় দলের হয়ে ট্রফি তুলেছেন। এশিয়া কাপে দলকে কাপ তুলে দেওয়ার নেপথ্যে যথারীতি অবদান রয়েছে খলিলের। ঘরের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে একদিনের ও টি-২০ সিরিজ জয়েও অবদান ছিল এই বাঁ-হাতি পেসারের। খলিল বলেন, ‘ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ থেকে আমি অনেক কিছু শিখেছি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো দলের বিরুদ্ধে দু-দুটো সিরিজ খেলতে পেরে আমি সত্যিই উচ্ছ্বসিত। আমি জানি কীভাবে আর্ন্তজাতিক স্তরে চাপ নিতে হয়। এই সিরিজ থেকে আমি অনেক কিছুই শিখেছি। এটা আমার জন্য শুরু। জাতীয় দলের হয়ে আমি আরও বেশি দিন খেলতে চাই।’


    সে্প্টেম্বরে আর্ন্তজাতিক ক্রিকেটে হাতেখড়ি রাজস্থান পেসারের। সেখান থেকে তাঁর উত্থান সত্যিই প্রসংশঅ করার মতো। এশিয়া কাপে জাতীয় দলে হয়ে অভিষেক ঘটান বাঁ-হাতি পেসার। তারপর আর পেচনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে। ইতিমধ্যে খলিলের মধ্যে ভবিষ্যতের জাহির খানকে দেখছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। জ্যাক ছাড়াও ভারতের সফল বাঁ-হাতিদের মধ্যে আশিস নেহরা ও ইরফান পাঠান অন্যতম। কিন্তু বছর কুড়ির খলিল নিজের জাত চেনাতে সফল। ছয়টি একদিনের ম্যাচে ২৪ গড়ে নিয়েছেন ১১টিট উইকেট, টি-২০তে তিন ম্যাচে তিন উইকেট রয়েছে বাঁ-হাতির। এরই মধ্যে খলিল তিনটি অধিনায়কের নেতৃত্বে জাতীয় দলের হয়ে খেলে ফেলেছেন। এশিয়া কাপে রোহিত এবং মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে খেলেছেন তিনি। পাশাপাশি বর্তমান অধিনায়ক কোহলির অধিনায়কত্বে খেলে ফেলেছেন। তবে প্রাক্তন অধিনায়ক ধোনির নেতৃত্বে খেলার সুযোগ পাবেন সেটা কোনও দিন ভাবেননি খলিল। এশিয়া কাপে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ধোনিকে একটা ম্যাচে অধিনায়ক হিসেবে ফিরিয়ে এনেছিল ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। যা নিয়ে পরে অনেক বির্তকও হয়েছিল। কিন্তু খলিল সেদিন ধোনির নেতৃত্বে খেলতে উপভোগ করেন। ‘আমি ভাগ্যবান ধোনির অধিনায়কত্বে খেলতে পেরে। কোহলি রোহিত অবশ্যই সেরা খেলোয়াড়। ধোনি কিংবদন্তি। তবে কোহলি ও রোহিতের নেতৃত্বে অনেক মিলও রয়েছে। দু’জনেই তরুণ ক্রিকেটারদের সুযোগ দেয়। তরুণদের স্বাধীনভাবে করার একটা পরিবেশ রয়েছে দলে। ধোনি উইকেটের পিছন থেকে খেলোয়ড়দের পরিচালনা করে। আমার প্রয়োজন-অপ্রয়োজনে ওরা সবসময় আমার পাশে এসে দাঁড়ায়। রোহিত অধিনায়ক হিসেবে দুর্দান্ত। ওরে নেতৃত্বে ক্রিকেট খেলতে আমি উপভোগ করি।’



    অস্ট্রেলিয়ায় নতুন বলে চ্যালেঞ্জ নেওয়ার জন্য কি খলিল তৈরি? উত্তরে রাজস্থানের পেসার বলেন, ‘অবশ্যই। আমি তৈরি। যদি আমার অধিনায়ক দেন তাহলে আমি নতুন বলে বল করতে তৈরি।’



    খলিলের সামনে এখন একটাই লক্ষ্য মিশন বিশ্বকাপ। অস্ট্রেলিয়া সফর তাই ভারতীয় পেসারের কাছে নতুন পরীক্ষা।

No comments:

Post a Comment