Breaking

Saturday, November 17, 2018

‘ভোগ ইন্ডিয়া’র র‌্যাম্পে দেশের প্রথম মহিলা কোবরা কম্যান্ডার

মুখে কালির দাগ। গায়ে জংলা পোশাক। মাথায় বাঁধা কালো স্কার্ফ। মাওবাদী অধ্যুষিত ছত্তিশগড়ে দন্ডকারণ্যের জঙ্গলে নাওয়া-খওয়া ভুলে পাহাড় দেওয়া মেয়েটাই উঠলেন ‘ভোগ উত্তম্যান অফ দ্য ইয়ার- ২০১৮-এর মঞ্চে। তখন সেখানে দর্শকাসনে আলিয়া ভাট থেকে শুরু করে করিনা কাপুর খানের মতো রুপোলি পর্দার তারকারা। সাহসিনী মেয়েটা ওউ মঞ্চে গ্রহণ করলেন ‘ভোগ ইয়ং অ্যাচিভার অফ দ্য ইয়ার’ পুরস্কার। তিনি ঊষা কিরণ। দেশের একমাত্র মহিলা কোবরা কম্যান্ডো।


     ২০১৪ সাল। আধা সামরিক বাহিনী সিআপিএফের ২৩২ মহিরা ব্যাটালিয়নে যোগ দিয়েছিলেন ঊষা। এর এক বছর পরেই দেশের প্রথম মহিলা হিসাবে কোবরা কম্যান্ডোতে যোগ দেন। কোবরা বাহিনীতে ছেলেদের সঙ্গে এক বন্ধনীতে তাকে যুক্ত করার অনুরোধ গিয়েছিল সিআরপিএফ থেকে। কোন এলাকায় যেতে চান প্রশ্ন করা হলে তিনটি এলাকার নাম বলেছিলেন ঊষা। জম্মু-কাশ্মীর, উত্তর-পূর্বের পাহাড়ী অঞ্চল, ছত্তিশগড়ের বস্তার জেলায়। জঙ্গলের প্রত্যন্ত এলাকায় মাওবাদীদের মোকাবিলা করার জন্য যে গেরিলা পদ্ধতির সাহায্য নেওয়া হয়, সেই পদ্ধতিতে লড়াই করতেই পারদর্শী কোবরা কম্যান্ডোরা। কোবরা বাহিনীতে ঊষা কিরণকে সকলে ডাকে ‘লেডি সিংহম’ নামে। কেন এ-হেন সম্মোধন? কারণ, কোবরা বাহিনীর পুরুষ সহকর্মীদের চেয়ে দক্ষতা এবং পারদর্শিতা কোনও অংশে পিছিয়ে নন তিনি। উল্টে প্রত্যন্ত গ্রামের মহিলারা কোবরা কম্যান্ডারদের ভয় পান বলে তাদের সঙ্গে বন্ধুর মতো কথা বলেন ঊষা। নিজে যে ইউনিটে তিনি কর্মরত, সেকানকার প্রধান তিনি।



     ২৮ বছরের এই তরুনীর মুখ দেখে অবশ্য মনের ভিতর বজ্রকঠিন মানসিকতাকে চেনার উপায় নেই। এমনকী নিজের ইউনিটের লোকেরাও তাকে ভয় পান। কাজের সময় এই কম্যান্ডো। যতখানি ‘কঠিন’, কাজের বাইরে অবকাশে ততটাই দিলখোলা মেজাজের। তখন র্কাযত একাই ক্যাম্প মাতিয়ে রাখেন ঊষা। এখানেই শেষ নয়, অবসরে গ্রামের বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া শেখানোর দায়িত্বও নিয়েছেন তিনি। গ্রামবাসীরা আজ এক বাক্যে স্বীকার করেন, ঊষা কিরণ আসার পরে বস্তার এলাকায় সত্যিই অনেক পরিবর্তন এসেছে। সেই তেজস্বিনী, সহসিকাকেই এ বার তার সাহস, র্শৌয ও সেবামূলক কাজের জন্য ‘ভোগ ইন্ডিয়া’ ম্যাগাজিনের তরফে ‘ভোগ ইয়ং অ্যাচিভার অফ দ্য ইয়ার’ পুরস্কারের জন্য বেছে নেওয়া হয়। ‘ভোগ ইন্ডিয়া’র ক্যলেন্ডারেও আছেন ঊষা। সেখানে বাকিরা ডিজাইনার পোশাকে থাকলেও ‘লেডি সিংহম’ যথারীতি আছেন কোবরা কম্যান্ডোর উর্দিতে।


     অতি সম্প্রতি মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত পুরস্কার গ্রহণের মঞ্চেও চারদিকে যেখানে জৌলুস আর ফ্যামানের ছড়াছড়ি, ঊষা পরনে ছিল ট্রেডমার্ক জংলা পোশাক। নিজেই বলেছেন, এই পোমাক ছাড়া তিনি নিজেকে ভাবতেও পারেন না। এদিন র‌্যাম্পেও হেঁটেছেন ঊষা। কম্যান্ডোর উর্দিতে তিনি যখন হাঁটছেন, দর্শকেরা উঠে দাঁড়িয়ে এই সাহসিকাকে স্যালুট জানালেন। পুরস্কার হাতে নিয়ে দেশের সর্বস্তরের জওয়ানদের তা উৎসর্গ করেছেন তিনি। বললেন, ‘এই পুরস্কার শুধুমাত্র ঊষা কিরণের নয়। এই প্রাপ্তি প্রত্যেক জওয়ানের যারা দেশের শান্তি বজায় রাখতে নিজেদের রক্ত ও ঘাম ঝরাচ্ছেন।’

No comments:

Post a Comment